গড়গড়ার মা’লো ত্রয়োদশ পরিচ্ছেদ: পুত্রোৎপাদিকা বনাম নভেল নায়িকা।

কি বর্ত করালি সই, কাঁদতে জন্ম গেল…
বঙ্গীয় পুরাতন গাথা

অন্দরমহলে উঁকি দেই । সতীলক্ষীদের কথা শুনেছি, কিন্তু তাঁদের দিনাতিপাত  কিভাবে হয় তা তো দেখা হয়নি?  বামাবোধিনী পত্রিকার জৈষ্ঠ্য  ১২৮২ (১৮৭৫)  সংখ্যায় পেলাম ‘গার্হস্থ্য দর্পণ’ প্রবন্ধ :

গৃহিনী অতি প্রত্যুষে  উঠিয়া শয্যা নিয়মিত স্থানে  রাখিয়া যথোচিতরূপে  বাতির সমস্ত স্থান পরিষ্কার করা প্রথম কর্তব্য. পরে বাহ্য শৌচ  ক্রিয়া সমাপন করিলে  শিশুদিগেরও  বাহ্য  শৌচ  স্নানাদির তত্ত্বাবধান করা উচিত , পরে আহ্নিক পূজা সমাপন অন্তর  আহারের আয়োজনাদি করিতে হয়।  কিন্তু তৎকালে মধ্যেই শ্বশুরাদি কোনো গুরু লোক থাকিলে  তাঁহাদিগেরও অবশ্যকমতো  প্রাতঃক্রিয়াদি কার্যের উপকরণ  প্রদান করিতে  এবং শিশু সন্তানাদি থাকিলে  তাহাদিগের অগ্রে আহার দিতে হয়.   গৃহস্বামীর [কার্যানুসারে  এবং বালকদিগের বিদ্যালয় গমনোচিত  সময়ানুসারে  প্রায় আহারের সময় স্থির রাখিতে হয়. …]  এই সময়টিতে গৃহিণীরা  অতিশয় ব্যস্ত থাকেন , সুতরাং কোনো ২  স্থানে প্রাতঃকালে উঠিয়াই প্রথমতঃ  আহারাদির আয়োজনে প্রবৃত্ত হয়েন এবং প্রাতঃকালোচিত  অনেক কার্য  মধ্যাহ্ন কালে করার নিমিত্ত রাখিয়া দেন. লোকাভাবে ও কার্যবাহুল্য  সত্ত্বে তাহা করিলে ক্ষতি নাই , কিন্তু কিঞ্চিৎ পূর্বে উঠিলে  যদি সমস্ত কার্য্য যথোচিত কালে সম্পাদিত হয়  তাহা হইলে তাহা করে কর্তব্য. যাহা হউক, সকলের আহারাদি সমাপনান্তে  গৃহিনী সুস্থির হইয়া  অসম্পাদিত  কর্তব্য সমস্ত সম্পাদন করিবেন […] অবকাশ প্রাপ্ত হইলে গৃহিনী সকলের পরিধেয়  বস্ত্রাদি যথাস্থানে আছে  কিনা তাহা পর্যবেক্ষণ করিবেন , সূচীকার্য  বা কোনো প্রকার সাংসারিক প্রয়োজনীয় কার্য  থাকিলে তাহা করিবেন , অথবা স্বয়ং অধ্যয়ন করিবেন  কিংবা  শিক্ষা দিবার পাত্র বা পাত্রী  থাকিলে শিক্ষা প্রদান করিবেন। ক্রমশঃ  বালকদিগের বিদ্যালয় হইতে  অথবা গৃহস্বামীর কার্য হইতে  প্রত্যাগমন কাল উপস্থিত হইলে , তাহাদিগের পরিতৃপ্তির নিমিত্ত আয়োজন করিবেন  এবং শয্যাদি প্রস্তুত  ও আলোর আয়োজন করিয়া পুনরায় আহারাদির আয়োজন করিবেন  . আহারাদি সমাপনান্তে   যেরূপ পরিষ্কার করণাদি  কার্য্য আবশ্যক ­ তাহা অনেক স্থলে রাত্রে সম্পাদিত না হইয়া  প্রাতে সম্পাদিত হইয়া থাকে , কিন্তু সাধ্য  সত্ত্বে রাত্রিতেই  কার্য শেষ করিয়া রাখা কর্তব্য. সমস্ত কার্য শেষ হইলে  নীতিগর্ভ গল্প  দ্বারা শিশুদিগের  মনোরঞ্জন করিয়া  অথবা অধ্যয়নাদি করিয়া  যথাকালে নিদ্রাগত হইবেন।

লেখাটি বেথুন স্কুল প্রতিষ্ঠিত হওয়ার ও ছাব্বিশ পর বামাবোধিনীতে প্রকাশিত হয়, লেখক অজ্ঞাত. গৃহিনী শুধু বালকগণের বিদ্যা শিক্ষা নিয়ে ব্যস্ত রাখার বিধান পেলেন দেখে তাবৎ আল্হাদ হলো। এছাড়াও দেখলেম, সুমঙ্গলী বধূদের  দিনপঞ্জিতে কোনোরকম ত্রুটি রইলো না, বস্তুতঃ, তাঁরা প্রত্যুষ হইতে রাত্রিকালে অবধি সংসার সন্তান প্রতিপালন এবং নীতি ধর্ম শিক্ষায় নিজেকে ব্যাপৃত রাখবেন এইটেই সাব্যস্ত হলো।
প্রস্তাবটি অযথা দীর্ঘ হয়ে পড়ছে জানি, কিন্তু এই বিষয়টি দুচার কথায় শেষ করা দুষ্কর,  এছাড়া ও দেখা গেল, যে বধূটি নিজের জন্য প্রায় কিছুই করার বিধান পান না..তাঁর নিজস্ব খড়খড়ি দেওয়া বারান্দা  বা ছাদের সময়টুকুও তাঁর থেকে কেড়ে নেওয়া   হলো। সর্বরূপ সৎকার্যে সতীলক্ষ্মী দিনতিপাত করলেন এবং যথাকালে নিদ্রা বক্ষে  ঢলে পড়লেন. অর্থাৎ, পন্ডিতজনেরা বলবেন, তাঁর মধ্যে ‘মদীয়. অর্থাৎ ‘আমি বোধ’ আদপেই নেই. তিনি ‘ত্বদীয়’, অর্থাৎ স্বামীর চরণে নিজেকে দান করে মোক্ষলাভ করেছেন। এই ত্বদীয় মদীয় উৎসটি আলোচনা না করে স্থানান্তরে যাওয়া গেলোনা। পাঠক নিজগুণে ক্ষমা করবেন।

শ্রীযুক্ত ভূদেব মুখোপাধ্যায়ের ‘লজ্জাশীলতা’ প্রবন্ধটি আমরা খানিকটা পড়েছি. সেই একই প্রবন্ধ সংগ্রহে ষষ্ঠ প্রবন্ধটির নাম ‘সৌভাগ্য পর্ব’ এটির বিষয় হলো সতীলক্ষ্মী (সুভগা)- রা  কিরূপে  তাঁদের সৌভাগ্যতে  মদীয় এবং ত্বদীয় ভাব negotiate  করেন। অর্থাৎ ‘ত্বমসি মম ভূষণং ত্বমসি মম জীবনং ত্বমসি মম ভবজলধিরত্নম্’  বেদবাক্যটি র পাঠ নেন যাতে করে সতীলক্ষ্মীর ‘মদীয়’ টি  স্বামীর  ‘ত্বদীয়’তে গঁদের  আঠা-সাঁটা হয়ে থাকে ।মুখুজ্জে মশাই বলছেন: “ত্বদীয়তা এবং মদীয়তা ভাব কাপড়ের টানাপড়েনের ন্যায় এমন পরস্পরের অনুসৃত যে তাহাদিগকে পৃথক করিয়া লওয়া নিতান্ত অসাধ্য।“

পাঠক, আপনি বলতে পারেন এর দ্বারা এই বোঝায় যে স্বামী স্ত্রী অন্যের পরিপূরক, এতে দোষ কোথায়? এইবার প্রবন্ধকারের উদাহরণ টি দেখুন, তাহলেই  বিষয়টি পরিষ্কার হবে:

[…] স্ত্রী স্বামীকে বলিলেন — “আজি ঘাটে অমুকের মা কে দেখিলাম –তেমন যে রূপ একেবারে কালিমাড়া হইয়া গিয়াছে । কেন অমন হলে, জিজ্ঞাসা করিলে বলিল,” আর দিদি, একটু পায়ের ধুলা তো দিলে না?”

“ওকথা কেন বলিল– তাৎপর্য কি?”

“সেকথায় কাজ নাই –তার স্বামীর দোষ জন্মিয়াছে তাই ওকথা বলিল । ইহার তাৎপর্য এই , তোমার আদরেই আমার এত গৌরব”।

কর্তার ইচ্ছায় কর্ম। ত্বদীয়-মদীয় বিষয়টি যে ঠিক আধাআধি আমে দুধে মিশে যাওয়ার ব্যাপার নয়, তা আশা করি বোঝাতে পারলাম। সৌভাগ্যটি স্ত্রীর, তিনি আদর পান, এবং সেই আদরটিই  হলো তাঁর   সৌভাগ্য। যিনি আদর করেন, এবার তাঁর কথায় আসি। ‘ত্বদীয় মদিয়’র মোটা কথা টি এইবার একটু  মোটা করে বলি। মুখোপাধ্যায় মহাশয়ের  রূপক ধর্মী কথোপকথন টি  থেকে বোঝা গেল যে অহোরাত্র স্বামী শ্বশুরাদির মঙ্গল বিধান করার পরেও, স্ত্রীর একটি কর্তব্য থেকে যায় যেটি  ‘গার্হস্থ্য দর্পণ-এ প্রতিফলিত হয়নি; সেইটি হলো, যাতে স্বামীর ‘চরিত্র দোষ’  না ঘটে সে ব্যবস্থাটুকু সেরে ফেলাও একটি সাধ্বীসুলভ কর্তব্য। । ঐটুকু বামাবোধিনীর সম্ভ্রান্ত লেখক আর বলে উঠতে পারেন নি। এইবার সেই কথাটি বলার সময় এসেছে।

পুত্রোৎপাদিকাশক্তি  সংক্রান্ত প্রস্তাব

১২৯৯ বঙ্গাব্দে  জনৈক শ্রী রাধানাথ মৈত্র  একখানি বই প্রকাশ করেন। বইটির নাম: কন্যা এবং পুত্রোৎপাদিকা শক্তির মানবেচ্ছাধীনতা  অথবা  স্বেচ্ছায় কন্যা এবং পুত্রোৎপাদন তত্ত্ব.মুখবন্ধে তিনি বলছেন:

“যে সকল কথা কইতে সহবাস স্পৃহা প্রশ্রিত হয় […] তাহা ভদ্র সমাজে ঘৃণার্হ. কিন্তু পুত্রলাভরূপ  ধর্মাদদেশে বিবাহ অথবা সহবাস বিষয়ে কোনো কথা  পবিত্র বলিয়া সর্বতো ভাবে গ্রহণীয়.  এসকল বিষয় আলোচনায়  এবং পিত মাতার আনন্দ স্বরূপ  পুত্র জন্মপ্রদানোদ্দেশ্যে  তদ্বিষয়ক আলোচনায়  আত্মতৃপ্তি  বাসনা মনে আদৌ স্থান পায় না।“

বাবু রাধাকান্ত মৈত্রর সন্দর্ভটি বাস্তবিক ‘পষ্ট কথায় কষ্ট নেই’ ধর্মী। তাতে তিনি বলছেন:
স্ত্রীর পক্ষে অত্যন্ত অধিক বলশালী  স্বামীর প্রতি রাত্রির অথবা সপ্তাহে দুইবারের সহবাস  অনেক স্ত্রীলোকের  স্বাস্থ্য  চিরকালের জন্য ভগ্ন হইয়া  গিয়াছে। স্বামীর পরদারগমনের ভয়ে স্ত্রীর কোনো অনিচ্ছা প্রকাশ  না করতে তিনি (স্বামী) মনে করেন এরূপ কার্য তাঁহার স্ত্রীর পক্ষেও আনন্দদায়ক।

আর এক পাতায় সেই দেখা গেল:”প্রায়ই অনিচ্ছা সত্ত্বেও স্ত্রীকে স্বামীর ইচ্ছার পরিতৃপ্তি করিতে হয়  ইহার বিপরীত কদাচিৎ কখনো ঘটে ।“

লেখকের দাবি, তিনি  বহু বিদেশী বিষ্যেশ করে মার্কিনি প্রবন্ধাদি পড়ে এই সিদ্ধান্তে এসেছেন যে তিনি ঠিক যেমনটি ভেবেছেন ঠিক তেমনটিই সায়েবদের স্বর্গে সত্য বলে প্রতিভাত হয়েছে।  যে কয়জন মার্কিনি ডাক্তারের নাম করলেন তাঁদের একজন ডাক্তার ষ্টকটন হাউ ১৮৮৮ খ্রিস্টাব্দে তিনি নাকি নিউ ইয়র্ক অবস্টেট্রিক্যাল জার্নাল এ  ‘পুত্র এবং কন্যাসন্তানের প্রসূতির উপর ক্ষমতা’ শীর্ষক একটি প্রবন্ধ লিখেছিলেন  ,অতএব, মহাজন যেন গত সো পন্থা। বইটি থেকে দুই একটি প্রস্তাব তুলে দিচ্ছি যাতে পাঠক বইটির যথার্থ পারমার্থিক  উদ্দেশ্য টি বুঝে নিতে পারেন:

১)  ক্রমাগত যাহাদের এক সন্তান হইবার অল্পকালের  মধ্যেই আবার গর্ভসঞ্চার  হইতে থাকে , তাহাদিগের কন্যাই অধিক হয়. মেজদি ওই মধ্যবর্তীকাল কিছু অধিক হয়  তাহা হইলে তাঁহাদের পুত্রসন্তান হইতে পারে। […] একটি কন্যাসন্তানের  জন্মের ছয়মাসের মধ্যেই যাঁহাদের আবার গর্ভসঞ্চার হইয়াছে , তাঁহাদিগের আবার কন্যাসন্তান হইয়াছে ; কিন্তু যখন আটমাস বা ততোধিক কাল  পার হইয়াছে , তখন পুত্র সন্তান হইয়াছে।

একটি কথা বলতে ভুলেছি সেটি এই ফাঁকে বলে রাখি. লেখক দাবি করছেন যে সায়েবদের এই সকল অনুমান তৈয়ের হয়েছে গাভী, মেষিনী এবংঅশ্বিনীদের প্রজননের উদাহরণ থেকে । যাই হোক, এইবার বাকী দুই একটি পড়ুন:

২)  নারীদেহে সন্তানোৎপাদন এবং লালন এই উভয় বিধির যন্ত্রের এরূপ সম্বন্ধ , যে প্রথমোক্ত  যন্ত্র  পুত্রজন্মদানে অনুপযুক্ত হয়, শেষোক্ত যন্ত্রটিও  পুত্রের লালনকার্যে  অনুপযুক্ত হইবে।

৩) প্রত্যূষকালে সহবাসের সময় বলিয়া অনেকে বিবেচনা না করিতে পারেন; পুত্রসন্তান লাভার্থ  ইহা উপেক্ষা  উৎকৃষ্ট এবং ধ্রুব উপায় আর নাই।

পাঠক, এই শেষোক্ত উপায়টির কারণ হিসাবে তিনি বলছেন, যে সারাদিনের কাজের পর হা-ক্লান্ত মেয়েমানুষএর  শরীর  দুর্বল হইয়া পড়ে, সুতরাং প্রজনন প্রক্রিয়াটি কিঞ্চিৎ ম্রিয়মান হওয়ার কারণে কন্যা ভ্রুণই  সঞ্চারিত হয়।

নারীর প্রজননযন্ত্রের এমন সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম বিচার আমি আগে পড়িনি।  অনুভব হলো, এই হলো বাবু ভূদেব মুখোপাধ্যায় বর্ণিত ‘সৌভাগ্য পর্বের’ চুলচেরা বিশ্লেষণ। নারীদেহ টি বিশষতঃ প্রজনন ক্ষমতা যদি উৎকৃষ্ট হয় এবং উৎকৃষ্ট রূপে  ব্যবহৃত হয়, তাহলে শুধু যে স্বামীর চরিত্র দোষ ঘটে না,তাহাই নয়, উপর্যুপরি পুত্রসন্তান উৎপাদন পূর্বক তিনি শ্বশুর  কুলের নাম উজ্জ্বল করেন।

মনে পড়লো  বেশ কিছুদিন আগে এইরকম কিছু একটা পড়েছিলাম বটে। মনে পড়ে গেল ব্রহ্মানন্দ কেশব চন্দ্র সেনের মাতা সারদা সুন্দরী দেবীর আত্মচরিতের ভূমিকা (১৯১৩)। তিনটি উদ্ধৃতি আছে ভূমিকায় । তার একটি শ্রী রামকৃষ্ণ পরমহংসের বাণী। তিনি সারদাসুন্দরী দেবীকে বলেছিলেন: “দ্যাখ্ মা, তোর নাড়িভুঁড়ি নিয়ে  পৃথিবীর লোক এর পরে নাচবে। তোর ওই ভান্ড থেকে ওই ছেলে বেরিয়েছে।”

keshub sen
ব্রহ্মানন্দ কেশবচন্দ্র সেন
১৯ নভেম্বের ১৮৩৮ – ৮ জানুয়ারী ১৮৮৪

‘শরীরম্ আদ্যং খলু ধর্মসাধনম্’: এ সকল আলোচনা এবং উদ্ধৃতি থেকে এই বেদবাক্যটির একটি নূতন অর্থ খুঁজে পেয়ে ধন্য হলাম। পাঠক, রবীন্দ্রনাথের ‘দৃষ্টিদান’ গল্পটি মনে পড়ে কি? সে গল্পে নিম্নোক্ত আলাপটি আছে :

হেমাঙ্গিনী: তোমার ছেলেপুলে নেই কেন?

কুমু: কেন তাহা কি করিয়া জানিব –ঈশ্বর দেন নাই ।

হেম: অবশ্য তোমার ভিতরে কিছু পাপ ছিল।

কুমু: তাহাও অন্তর্যামী জানেন ।

হেম: দ্যাখো না , কাকীর ভিতরে এত কুটিলতা যে উহার গর্ভে সন্তান জন্মিতে পায়না.
দৃষ্টিদান (রচনা : পৌষ ১৩০৫)

নারী ‘ভান্ড’র পুত্রোৎপাদিকাশক্তি টি বেশ কাজে লাগলো যখন ১৯শ শতকে আমরা দেশমাতৃকার মডেলটি খাড়া করলাম । শ্রী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রবন্ধাংশ বিবেচনার জন্য পেশ করা হ’ল:

আমাদের দেশমাতাকে বহুপুত্রবতী হইতে হইবে। এই পুত্রদের কেহ বা দেশের জ্ঞানকে, কেহ বা দেশের ভাবকে, কেহ বা দেশের কর্মকে অনুবৃত্তি দান করিয়া তাহাকে উত্তরোত্তর পরিপূর্ণ করিয়া তুলিবে । তাহারা নানালোকের উদ্যমকে একস্থানে আকর্ষণ করিয়া লইবে, তাহারা নানাকালের চেষ্টাকে একত্রে বাধিয়া চলিবে । তাহারা দেশের চিত্তকে নানাব্যক্তির মধ্যে ব্যাপ্ত করিয়া দিবে এবং অনাগত কালের মধ্যে বহন করিয়া চলিবে । এমনি করিয়াই দেশের বন্ধ্যা অবস্থার সংকীর্ণত ঘুচিয়া যাইবে, সে জ্ঞানে প্রেমে কর্ষে সকল দিকেই পরিপূর্ণ হইয়া উঠিবে।

(“বাংলা জাতীয় সাহিত্য” প্রবন্ধ ১৩০১ সালের ২৫শে চৈত্র রবিবার বঙ্গীয়সাহিত্য-পরিষদের সাংবৎসরিক উৎসব-সভায় পঠিত হয় ।)

অলমিতি বিস্তারেণ।

 

চোরা না শোনে ধর্মের কথা

 

BIBAHA

নারীত্বের নিষ্কাম কর্ম অথবা ধর্মের প্রচারটি এমনি মোক্ষম দাওয়াই যে দেহ সম্পর্কিত চিন্তা পাপ কাজ এই বিবেচনাটি ভালোরকম শিকড় ছড়িয়েছিলো।  ১৩০৭ সনে সন্তোষের ছোট তরফের জমিদার শ্রী প্রমথনাথ রায়চৌধুরী  এক খানি প্রেমের গল্প লেখেন; গল্পটি প্রকাশিত হয় ‘প্রদীপ’ পত্রিকায়।  এই অংশে এক যুবক তাঁর বাল্য প্রেমিকা  সুধার  প্রেম বিচার বর্ণনা করছেন:

“একটা নুতন কবিতা লিখিলেই, খাতা লইয়া কাড়াকাড়ি পড়িয়া যাইতো । আমি লিখিতাম, –বিদুষী সুধা শুনিত, শুধু শুনিতই না, কখনও সংশোধন কোরিয়া দিত। একটা স্থান খুলিয়া দেখিলাম –হায়, সে আজ কতদিন! — আমি লিখিয়াছিলাম ‘দেহের মিলন’ , সুধা ‘দেহের’ কাটিয়া ‘আত্মার’ করিয়াছে ! তাহার সুন্দর হস্তাক্ষরটি তেমনই জ্বলন্ত মহিমায় শোভা পাইতেছিল। তখন বুঝি নাই, সুধার প্রেমের আদর্শে  কতটা উচ্চতা কতটা আন্তরিকতা ছিল।“

দেহের মিলন ইত্যাকার অশ্লীল প্রসঙ্গ সাধ্বীরা নাহয় নেপে পুঁছে  আত্মাকে পরিষ্কার ঝরিষ্কার করে ত্বদীয়তে সমাহিত হলেন, এবং গড়পড়তা বৎসরান্তে একটি করে পুত্রসন্তান উপহার দিতে থাকলেন, কিন্তু  কিছু আড়বুঝো স্ত্রীলোক নারীত্বের গৌরব টি বুঝতেই পারলেন না কারণ তাঁদের ভান্ডারীটি অন্যত্র ব্যস্ত আছেন,তাঁদের ‘দোষ’ হয়েছে, নয় কোনো মহৎচিন্তায় ব্যাপৃত আছেন সুতরাং ভান্ডটি অব্যবহৃত।

GARGARA IV BHASHA

দুই একটি কবিতা বলি:

আমি কুলবতী নারী,

পতি বই আর জানিনে,

এখন অধীনেই বলিয়ে ফিরে নাহি চাও ,

ঘরের ধোন ফেলে প্রাণ —

পরের ধন আগুলে বেড়াও।

নাহি চেনো ঘর বাসা , কি বসন্ত, কি বরষা।

সতীরে করে নিরাশা অসতীর  আশা পুরাও ।

অথবা:
আমার সমান নারী ত্রিজগতে নাহি হেরি

আমি নারী অতি অভাগিনী ।

ধনে মানে কূলে শীলে  বর দেখি বিয়ে দিলে

সমাদরে জনক জননী ।।

বিবাহের পর আসি  শ্বশুর ঘরেতে বসি

দিবানিশি থাকি একাকিনী ।

নবীন যৌবন ভরে, চিরকাল কামজ্বরে ,

পুড়ে মরি দিবসরজনী ।।
হরিদাসী বৈষ্ণবীরে যখন সূর্যমুখী বলেছিলেন,  “গৃহস্থ বাড়ির ভালো গান গাও”  , বৈষ্ণবী গেয়েছিল:

“স্মৃতিশাস্ত্র পড়ব আমি ভট্টাচার্যের পায়ে ধরে,

ধর্মাধর্ম শিখে নেবো কোন বেটি বা নিন্দে করে।”

গৃহস্থ বাড়ির ভালো গানে যে প্রবল হুলটি  আছে আমরা তার খোঁচা খেলাম।

সেই বিদ্যাসুন্দর হতে ১৮৩১ এর  সংবাদ প্রভাকর অবধি  নারীজাতির ‘মদন’ যে (অষ্টগুণ) প্রবল, সে আমরা শুনে এসেছি; এখন কথা হলো যে হতভাগীদের ভান্ডারী নিরুদ্দেশ, অথবা কৈবল্যপ্রাপ্ত, তাঁরা কি করেন? কিছু গেলেন শ্বশুরবাড়ির নিকটাত্মীয়, নায়েব এবং বামাহিতৈষী বাবু ইত্যাদির করপুটে । যাঁদের সে ছাইও জুটলো না, তাঁরা হলেন নবেল নায়িকা।

এই নবেল হলো ইংল্যান্ডের sentimental novel-এর বঙ্গীয় সংস্করণ।

এ বিষয়ে  বিবি Mary Wollstonecraft -এর  বক্তব্য:

Women, subjected by ignorance to their sensations, and only taught to look for happiness in love, refine on sensual feelings, and adopt metaphysical notions respecting that passion, which lead them shamefully to neglect the duties of life, and frequently in the midst of these sublime refinements they plunge into actual vice.

These are the women who are amused by the reveries of the stupid novelists, who, knowing little of human nature, work up stale tales, and describe meretricious scenes, all retailed in a sentimental jargon, which equally tend to corrupt the taste, and draw the heart aside from its daily duties. I do not mention the understanding, because never having been exercised, its slumbering energies rest inactive, like the lurking particles of fire which are supposed universally to pervade matter.
(A Vindication of the Rights of Woman, 1798)

বিবি Wollstonecraft বর্ণিত  Sentimental novel এবং তার পাঠিকাকূলের ছাপ পড়েছে বটতলায় ছাপা ‘নবেল নায়িকা’ প্রহসনে।  এই প্রহসনের নায়িকা রুক্মিণী নাওয়া খাওয়া ছেড়ে খালি নবেল পড়ে আর প্রেম খোঁজে। নবেল তার ধ্যান জ্ঞান।  শেষকালে সে তার নিরীহ রেল বাবু স্বামীটির পরামর্শ দেয় নবেল লেখার। এই বটিকাটি সে যে গুলে খেয়েছে, সে বোঝা যায় যখন সে তার স্বামীকে বোঝায়:

“এক একখানা নভেলের মধ্যে চারিটি করিয়া গান আর ছয়খানি করিয়া হাফ টোন ছবি দেবে।  ছবিগুলির স্ত্রীমূর্তি গুলি  সযৌবনা  ও উন্মুক্তবক্ষা  ও অস্ত্রধারিনী হইবে । পুরুষ অমনি  তাহাকে স্থির করিবার জন্যে জড়াইয়া ধরিবে —কিন্তু স্তন দুইটির ওপর যেন হাতখানা না পড়ে।”

(লেখক ও প্রকাশকাল অজ্ঞাত)

পাঠকের কি হাস্যোদ্রেক হলো? হওয়াই স্বাভাবিক, কারণ অশ্লীলতাটি হাস্যরস বিজড়িত। কিন্তু যে বার্তাটি প্রেরণ করা হলো তা উপাদেয় নহে। হাসির যে রোলটি উঠছেন তা একটি ‘অমিত ইন্দ্রিয় পরায়ণা’, অভব্য অথচ শিক্ষিত স্ত্রীলোক কে ঘিরে, যিনি ঘরে বসে নাটক নভেল পড়ে সময় নষ্ট করেন এবং পবিত্র স্ত্রীদেহ টি  কে বাজারের পণ্যসামগ্রী করতে স্বামীকে  মন্ত্রণা দেন ।

প্রহসনে অতিরঞ্জন অবশ্যই থাকে,  তবে এ জাতীয় বই যে মেয়ে মহলে প্রচলিত ছিল সে তো বঙ্কিম বাবু আমাদের জানিয়েছেন! এক পালিশ ষষ্ঠী বাবু যে তার ওপর দোর দিয়ে হামলে পড়েছিলেন সেও আমরা দেখেছি। বামাবোধিনী , স্ত্রীশিক্ষামূলক সাহিত্য এই অশ্লীল নভেল পড়া বিষয়ে উত্তাল।  এ কথা আগেও বলেছি। মহিলারা এই নর্দমায় কেন ডুব দিতেন সে কথা কোনো মনীষী ভেবে দেখেছিলেন কি? দেখে থাকলেও আমার তা চোখে পড়েনি। বোধকরি তাঁরা সাধ্বীদের মানসিক উন্নয়নে ব্যস্ত ছিলেন।

ঘরে বাইরের সন্দীপ বাবু কিন্তু বুঝেছিলেন, তাই তিনি  স্ত্রীপুরুষের মিলননীতির বইখানি বৈঠক খানায় ফেলে রেখে গেলেন  এবং  মক্ষীকে বললেন : “আমার খুব ইচ্ছে ছিল এ বইটা নিখিল পড়ে।”

আমার ধারণা কথাটি একেবারে মিথ্যে নয়। নিখিলেশ  তাঁর বন্ধু। তাকে তিনি চিনতেন।
যাই হোক, রুক্মিণী, বিমলা এইসব outlandish, অনাচারদুষ্ট  শূন্য ভান্ড হ’তে আমরা দূরে থাকি।  এনারা exceptions। এঁদের কথায় আমাদের কাজ নেই।

বরঞ্চ আসুন, আমরা সকলে মিলিয়া  পুত্রোৎপাদিকা শক্তির জয়গান গাই ।

বন্দে মাতরম্।

Featured Image: https://www.pinterest.com/pin/493425702894207881/

Advertisements

About purnachowdhury

I am a person of and for ideas. They let me breathe.
This entry was posted in বাংলা, রম্য রচনা, প্রবন্ধ, History, Women. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s