রাণী পিসীমা

Jamini-Roy_3
রাণী পিসীমার নাম কেন রাণী ছিল তা কোনওদিন জানতে পারিনি। আমার অন্য পিসীদের নাম ছিল ফুলের নামে:অতসী, শেফালী, যূথিকা, মুকুলিকা…আরও একজন ছিল… নামকরণ ঠাকুর্দারাই করেছিলেন, হয়ত বুঝেছিলেন অনঙ্গমঞ্জরী, ইন্দুমতীদের দিন শেষ হয়ে আসছে। ওসব আমার ঠাকুমাদের নাম। আমাদের বাড়ীতে তখন বউদের নতুন নাম দেওয়ার চল ছিল, আমার ছোটঠাকুমার নাম ছিল কালীতারা, তিনি হলেন ইন্দুমতী…সে যাই হোক, হচ্ছিল রাণী পিসীমার কথা। টুকটুকে ফর্সা, ছোটখাটো মানুষ  পানপাতামুখ, ছোটঠাকুর্দার মেয়ে। ঠাকুর্দারা গরীবঘরের মেধাবী ছেলে দেখে মেয়েদের বিয়ে দিতেন তারপর তাঁরা থিতু হলে মেয়েরা বাপের বাড়ী ছাড়ত। ক্ষীরোদ পিসেমশাই ছিলেন ময়মনসিংহ জেলায় ম্যাট্রিকে প্রথম। খুব দর হেঁকেছিলেন ওনার বাবা। বড়ঠাকুরদা তাতেই রাজী। বিপদ হল বিয়ের আসরে। বরকর্তা হঠাত দর বাড়িয়ে ফেললেন হীরের টুকরো ছেলের।বড়ঠাকুর্দা বলেছিলেন: “দিয়ামনে বেয়াইমহাশয়…কিন্তু একটাকার নোটে…আপনে বিবাহস্থলে হক্কলের সমনে বইস্যা গুইণ্যা নিবেন”।

এসব গল্প মার কছে শোনা, কথকঠাকরুন লাবণ্যপ্রভা,আমার ঠাকুমা: বড়ঠাকুর আইয়া রাণীরে কইলেন: “মা-রে, খোঁজখবর না লইয়া তরে নিকৃষ্ট ঘরে দিলাম আমারে ক্ষমা কইরা দে মা !” রাণী পিসীমার ফুলশয্যাও বাপের বাড়িতে । “আমরার মাইয়া বেচুন্যা বাড়ী যাইত না” !

রাণী পিসীমার শ্বশুরবাড়ি থাকা হয়নি। দেওর ননদের বিয়েতে সকাল সকাল পাল্কি করে গিয়ে বিকেল বিকেল রওনা।তখনকার কালে পুর্ববঙ্গের গ্রামে দুপুরবেলা বিয়ে বৌভাত সব।

আমি যখন পিসীমাকে দেখি, তখন পিসীমার কাঁচাপাকা চুল, ‘সোনার খাটে গা রুপোর খাটে পা’। ‘বেচুন্যা বাড়ী’র ছেলে তখন মস্ত উকীল। পিসীমার দুই ছেলে দুই মেয়ে । পিসীমার খাবার ঘর আমাদের আস্ত বাড়ী।
-এগুলো কি রূপোর, মা?
-চুপ, বোকা মেয়ে!

বোকা মেয়েরা অনেক কিছু বোঝে কিন্তু বাবা মা কে বলে না। যেমন কুন্দপিসী, কুন্দনন্দিনী I ছোটঠাকুর্দার ছোট মেয়ে। শ্যামলা, ছটফটে চোখ, গলা অদ্ভূত ভাঙা আর সুরেলা।কুন্দপিসীর কোমরে মস্ত ঝুমকোয় বাঁধা অনেক চাবি। কুন্দপিসী ঘরে থাকলে পিসেমশাই খুব হাসেন। রাণীপিসীমার শাড়ী পছন্দ করে কুন্দপিসী। ঝকমকে জরির ধাক্কা দেওয়া। নিজের শাড়ি সাদা, হালকা বাদামী…কুন্দপিসী টিপ পরেনা, গয়না পরেনা।খুব হাসে। আর লবঙ্গ খায়। রাণীপিসীমার ঠোঁট পানের রসে লাল। কিন্তু ঐ বাড়ীটাতে যারা থাকে তারা আমাদের মত না। এমনকি মামাবাড়ীর মতও না। সবাই কম কথা বলে। সমীরদাদা নিচে নামেনা,এমনকি তার তিনতলার সিঁড়িও আলাদা। ঝুন্টুদিদি নিজেনিজে বিয়ে করলো কিছুতেই সানাই বাজিয়ে বিয়ে করতে চাইলো না। বাবারা দল বেঁধে ভাই ফোঁটা নিতে যায়, কোনও পিসীমা যায়না। রাণীপিসীমা কিন্তু সবার বাড়ি যায় সাদা গাড়িতে করে। কিছু খায়না, বলে “কুন্দ রাগ করবো”।

*****

kantha4
শেষবার রাণীপিসীমাকে দেখি মেজদির বিয়ের সময় ধানবাদে। বৌদিদের থুতনি নেড়ে রঙ্গরসিকতা। হাতে তাল দিয়ে দিয়ে বাচ্চা মেয়ের গলায় মৈমনসিংহের বিয়ের গান গেয়েছিল  রাণীপিসীমা :

রহণ ছাড়িলে যেমন চান্দের প্রকাশ ।
কুমারে দেখিয়া কন্যা পাইল আশ্বাস ।।
প্রভাতের ভানু যিনি ছুরত সুন্দর ।
একে একে দেখে কন্যা সর্ব্ব কলেবর ।।
কন্যারে দেখিয়া কুমার লাগে চমত্কার ।
এমন নারীর রূপ না দেইখ্যাছে আর ।।
পরথম যৌবনে কন্যা হীরা-মতি জ্বলে ।
কন্যারে দেখিয়া কুমার কহে মিঠা বুলে ।।

আড়াল থেকে শুনেছিলাম রান্নাঘরে মা জ্যেঠিমাদের ফিসফাস:
–“রাণী ঠাকুরঝিরে দ্যাখসস্? কেমন জানি ভাল ঠ্যাহেনা…”

*****

মেয়েরা বড় হয়। শাড়ী ধরে, লাল ঝুঁটি লম্বা বিনুনী হয়…আরও অনেক কিছু হয় তখন। হঠাৎ কাউকে দেখে শ্বাস নিতে কষ্ট হয়, শরীর কাঁপে. এইসব। ভুলেই গেছিলাম পিসীমাকে।একদিন কলেজ ফেরৎ শুনেছিলাম রাণীপিসীমা মারা গেছেন। ঠিক দুই সপ্তাহ পরে ক্ষীরোদপিসেমশাই।

জ্যেঠিমারা বলাবলি করেছিল:
– “সতীলক্ষ্মী সিঁদুর পরানোর মানুষডারেও লইয়া গেল…”

কুন্দপিসী এখনও আছে ;একটা ছোট ভাড়া করা ফ্ল্যাটে।

রূপোর চাবিছড়া কোথায় কে জানে।

Advertisements

About purnachowdhury

I am a person of and for ideas. They let me breathe.
Image | This entry was posted in Uncategorized and tagged , , . Bookmark the permalink.

17 Responses to রাণী পিসীমা

  1. সুন্দর হয়েছে, পড়তে পড়তে একটা সময় যেন চোখের সামনে ভেসে উঠল ।

  2. Amrita Dasgupta says:

    Bhari sundor lekha….. chhobi futey uthlo ….. Mymansingh ghurey elam……

  3. poulami says:

    ki bhalo likecho go..kintu khub chooto porte portei sesh hoi gelo…

  4. apratim says:

    তোমাকে মানায় , তোমাকেই মানায়। যে চাবির গোছা ফেলে এসে জনম গেল শান্তি পেলি না, …..

  5. sanjukta bagchi says:

    Sorry for lack of Bangla script..good Purna..insight into family complexities…a little more on Kundo pishima could hv been welcome

  6. Sushmita Mitra says:

    Bangla script chadai boli…… bhishon bhalo legeche.

  7. Aparajita Sen says:

    “রূপোর চাবিছড়া কোথায় কে জানে” – jantey parley mondo hoto na kintu.
    Ei golopo-ta poRey amar keno jeno Moravia-r lekha money porey jachchey – koyekta anchorey lekha jiboner chobi – kichuta bola ar beshi-tai na bola. Eta dekhchi anekdin ager lekha – agey keno poRa hoy ni ekhon money kortey parchi na.
    Et katha-y anobodya.

  8. Sudeshna says:

    Purna Di, বেচুন্যা mane ki? aar biyer gaane oTa ki রহণ na গ্রহণ? If former, what’s the meaning?
    Kundo Pishi ki balyobidhoba chhilen?

    • Sudeshna: ‘বেচুন্যা’ মানে যারা বিক্রি করে: বেচা/কেনা।রহণ আসলে গ্রহণ …ওটা কথ্য ভাষা 😀 আর কুন্দপিসী বিয়ে করেনি।

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s